নোটিশ :
জরূরী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি: সারাদেশ ব্যাপী সাংবাদিক নিয়োগ চলছে আগ্রহীরা যোগাযোগ করুন: 01753741909, সিভি পাঠান:  crimejanata24@gmail.com
ব্রেকিং নিউজ :
বৃষ্টির আভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। তবে আগামীকাল মঙ্গলবার থেকে তাপমাত্রা আবারও বাড়ার আভাস দেওয়া হয়েছে। বরিশাল এর হিজলা উপজেলায় নৌপুলিশ এর হাতে গ্রেফতার ১৬ জেলে। হাতিয়া উপজেলার নিঝুম দ্বীপের সেই পুকুরে এবার মিলল একশ ইলিশ। জাহাজ এমভি আবদুল্লাহকে জিম্মি করে রাখা সোমালিয়ার জলদস্যুদের খুব কাছ থেকে কঠোর পর্যবেক্ষণে রেখেছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নৌবাহিনী। এখন পর্যন্ত শহিদ বুদ্ধিজীবী হিসাবে রাষ্ট্রের স্বীকৃতি পেলেন ৫৬০ জন শহিদ বুদ্ধিজীবী। ঈদের দিন ধরে ট্রেনের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। রাশিয়ার দুটি বড় জাহাজে হামলা চালিয়েছে ইউক্রেনের সামরিক বাহিনী। আন্দারমানিক ইউনিয়ন পরিষদের দুর্নীতির অভিযোগ। হিজলায় বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন উপলক্ষে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত । সোমালিয়ার জলদস্যুদের ছিনতাই করা পণ্যবাহী জাহাজ ‘এমভি রুয়েন’ থেকে ১৭ নাবিককে উদ্ধার করেছে।
মনে পড়ে আজও একাত্তর বাগেরহাটের ডাকরার দিন গুলি সেই গনহত্যার

মনে পড়ে আজও একাত্তর বাগেরহাটের ডাকরার দিন গুলি সেই গনহত্যার

ম.ম.রবি ডাকুয়া,বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধিঃ বাগেরহাটের ডাকরা কালিগ্ঞ্জ হত্যাকান্ড গণহত্যা হয় ২১ মে ১৯৭১ ইং সালে তৎকালিন খুলনা জেলার বাগেরহাট উপ-বিভাগে শান্তি কমিটির সদস্য ও রাজাকারদের দ্বারা ডাকরা গ্রামে নিরস্ত্র হিন্দু উদ্বাস্তুদের গণহত্যা করা হয়। বাগেরহাট উপ-বিভাগীয় শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান রজ্জব আলী ফকিরের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। গণহত্যাতে ২০০০ এরও বেশি হিন্দু  নারী-পুরুষ ও শিশু নিহত হয়। শুধু বাগেরহাট নয় বরিশাল, পিরোজপুর,ঝালকাঠি,বরগুনা সহ আশেপাশে অনেক হিন্দু তখন ওখানে জড় হয় ভারতের উদ্ধেশ্যে দেশ ত্যগের জন্যে।

ডাকরা গ্রাম বাংলাদেশের খুলনা বিভাগের বাগেরহাট জেলার মোংলা নদীবন্দরের অদূরে রামপাল উপজেলার পেরিখালী ইউনিয়নে অবস্থিত। ১৯৭১ সালে বাগেরহাট জেলা খুলনা জেলার একটি উপ-বিভাগ ছিল। ডাকরা মংলা নদীর দক্ষিণ তীরে অবস্থিত, যা পশ্চিমে প্রবাহিত হয় এবং

মোংলা বন্দরের কাছে পশুর নদীর পাড়ে। মংলা নদীর উত্তর তীরে ডানার বিপরীতে, বাঁশতলী ইউনিয়নের কৃষ্ণগঞ্জ বাজারে অবস্থিত। ডাকরা একটি প্রধানত হিন্দু গ্রাম ছিল, এটি একটি বিখ্যাত কালী মন্দির ছিল। নকড়া ঠাকুর নামেও পরিচিত বকবক চক্রবর্তী, যিনি আধ্যাত্মিক ব্যক্তিকে সবার দ্বারা সম্মানিত করেছিলেন।

অপারেশন সার্চলাইটের উদ্বোধন শেষে খুলনায় শান্তি কমিটি ও রাজাকার বাহিনীর বর্বরতার আয়োজন করা হয়। এপ্রিল মাসে, রাজাকাররা হিন্দুদের উপর নির্যাতন শুরু করে এবং তাদের সম্পত্তি লুট করে। মে মাসের মাঝামাঝি, অবিভক্ত বরিশাল জেলার পিরোজপুর,বরগুনা,ঝালকাঠি ও বরিশাল সদর উপ-বিভাগের হাজার হাজার হিন্দু এবং অবিভাজিত খুলনা জেলার বাগেরহাট উপবিভাগে বাংলাদেশ  থেকে ভারত পালানোর সময় যাত্রা হিসেবে ডাকার ব্যবহার শুরু হয়। ২১ মে, দাক্ষায় প্রায় ১০,০০০ হিন্দু শরণার্থী আটক ছিল।

বিকালে বিকেলে রাজব আলী ফকিরের নেতৃত্বে ২0 থেকে ২৫ রাজাকারের একটি দল দুই নৌকায় ডাকরা পৌঁছে।  প্রথম নৌকাটি কালীগঞ্জ বাজার অতিক্রম করে মাদারতলী খালের দিকে অগ্রসর হয়। দ্বিতীয় নৌকা কুমারখালী খাল বরাবর অগ্রসর হয় এবং তারপর মাদারতলী খাল বরাবর আকরাম আকবর আকরাম হয়ে যায়। দ্বিতীয় নৌকা থেকে রাজাকাররা নেমে আসে এবং ভিড়ে গুলি চালায়। এদিকে, প্রথম নৌকা থেকে রাজাকাররাও নিচে নামলো এবং কালী মন্দিরের দিকে এগিয়ে গিয়ে ভিড়ের মধ্যে নির্বিচারে গুলি চালায়। ভিড় কভার করার জন্য চলমান অপারেশন শুরু করে। অনেকে নদীতে ঢুকে পড়ে এবং গুলি করে হত্যা করা হয়। নদীতে ১৫০ জনেরও বেশি লোক গুলিবিদ্ধ। রাজাকাররা গ্রামে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও ধর্ষণের শিকার হয় অসংখ্য নারী। সুন্দরী নারীদের যৌন দাসত্বের জন্য বন্দী করা হয়।

জামায়াতে ইসলামী নেতা একেএম ইউসুফের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগ আনা হয়েছে বাংলাদেশ সরকার।  ইউসুফকে হিন্দুদের গণহত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করা হয়েছে এবং দাক্ষার গণহত্যার জন্য সরাসরি দায়ী করা হয়েছে। নিহতদের স্মরণে ডাকাতিতে কোনো স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয়নি। ২০১০ সালে ডাকরার গণহত্যা স্মৃতি সংরক্ষণ পরিষদ ডাকারার গণহত্যার শিকারদের স্মরণে একটি অনুষ্ঠান আয়োজন করেছিল।আশানুরূপ কোন পদক্ষেপ বা শহীদদের জন্যে তেমন কোন পদক্ষেপ নেয়া হয়নি ।স্থানীয় মানুষের মনে আজো সেই গনহত্যার দিন গুলি মনে করে আতংক জগিয়ে তোলে।স্থানীয়রা এক দিনের জন্যে ও ভুলতে পারছেনা সেই দিন গুলি।

সূত্র-উকিপিডিয়া

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2024 Crimejanata24.Com
Design & Development: Hostitbd.Com